Walton Primo HM5: ঈদের আগে নতুন চমক

বাংলাদেশের স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে হাইপ তোলার বিদ্যেটা ওয়ালটন রপ্ত করেছে বেশ ভালোভাবেই। সাথে তাদের গ্রাফিক্স ডিজাইনারদেরও প্রশংসা করতে হয়। স্মার্টফোন রিলিজের আগে কিছুদিন গুরুত্বপূর্ণ ফিচারগুলোর চমকপ্রদ উপস্থাপন ভালো কিছুর আশা বাড়িয়ে দেয়। তবে রিলিজ হওয়ার পর সে আশার পুরোটা অবশ্য সবসময় পূরণ হয় না।

Walton Primo HM5 এর ক্ষেত্রেও এই কথাগুলো বেশ প্রযোজ্য। যদিও এটির দাম অনুযায়ী ফোনটি ভালো লেগেছে, তবে তাদের ফেসবুক পোস্টগুলো আরো ভালো কিছুর দিকেই ইঙ্গিত করছিলো। যেমন, তারা বলেছিলো Higher Clock Speed প্রসেসর, কিন্তু শেষ পর্যন্ত যা দেওয়া হলো, তার জন্য আমি ঠিক প্রস্তুত ছিলাম না।

স্মার্টফোনটি নিয়ে পর্যালোচনা শুরু করার আগে আমি একটি ডিসক্লেইমার দিয়ে দিতে চাই, সেটি হলো RX7 Mini-র সাথে কম্পেয়ারের চেষ্টা না করাই ভালো। ওটা একটা ব্যতিক্রম, যেভাবেই হোক, ওয়ালটন খুব অল্প মূল্যে Nokia X5 কে রিব্র্যান্ড করতে পেরেছিলো এবং এতদিন পরেও অন্য কোন ব্র্যান্ড কিংবা ওয়ালটন নিজেও কিন্তু এরকম দামে ওটার মত চমৎকার চিপসেট কিংবা প্রিমিয়াম বিল্ড দিতে সক্ষম হয়নি।

এখন তাহলে Walton Primo HM5 নিয়ে কথা বলি। ঈদকে সামনে রেখে রিলিজ হয়ে গেলো নতুন এই স্মার্টফোনটি। এর মূল আকর্ষণ হলো অল্প দামের মধ্যে 3GB র‌্যাম, 64GB রম আর 4900 mAh ব্যাটারী। তবে কয়েকটি জায়গায় খানিকটা হতাশ করেছে।

ডিজাইন ও বিল্ড

ফোনটি প্লাস্টিক বিল্ড এবং ডিজাইনে কোন নতুনত্ব নেই। এখন কিন্তু এই বাজেটের মধ্যেও বিভিন্ন ব্র্যান্ড বেশ ভালো ডিজাইন ও প্রিমিয়াম লুকের ফোন নিয়ে আসছে, যেগুলো প্লাস্টিক বিল্ড হলেও দেখতে চিপ মনে হয় না। তবে HM5 এর ক্ষেত্রে এটা প্রযোজ্য না। মনে করছি, আরেকটু আপগ্রেড প্রয়োজন ছিলো এখানে। তবে সামনের দিকে বেজেল ও চিন বেশ সন্তোষজনক। সাথে রয়েছে U শেপের ছোট্ট একটি নচ।

দুটো ক্যামেরার নিচে ডুয়াল ক্যামেরা লিখে ক্যামেরা মডিউল বড় করার বিষয়টা একদমই আমার চয়েসের সাথে যায় না। ফোনটি আনা হয়েছে তিনটি কালার ভ্যারিয়েন্টে- PURPLE, MIDNIGHT CYAN ও BLACK। পিওর ব্লাক কালার এখনকার ফোনগুলোতে প্রায় দেখাই যায় না, অনেকদিন পরে দেখলাম।

ডিসপ্লে

এন্ট্রি লেভেল বাজেট সেগমেন্টে এখন বড় ডিসপ্লের ছড়াছড়ি। অনেকদিন ধরে 6.5″ ডিসপ্লে দেখতে দেখতে ক্লান্ত হয়ে যাচ্ছিলাম। তবে HM5-এর ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে 6.1″। সত্যি বলতে আমার মনে হয় এটা একটা স্ট্যান্ডার্ড সাইজ। 6.5″ অনেকের জন্যই একটু বেশি হয়ে যায়। তাছাড়া রেজ্যুলেশন যখন HD+, তখন বেশি বড় ডিসপ্লে দিলে শার্পনেসের ঘাটতিও চোখে পড়ে। অবশ্যই এটা একটা IPS প্যানেল, যার রেজ্যুলেশন 1560*720 (HD+) ও পিক্সেল ডেনসিটি ~282 PPI।

ক্যামেরা

ওয়ালটন বিশেষভাবে এর 13MP রেয়ার ক্যামেরাতে সনি সেন্সর থাকার কথা উল্লেখ করেছে, যদিও সুনির্দিষ্টভাবে কোন সেন্সর তা উল্লেখ করা হয়নি। 1/3.06 সাইজের সেন্সর এটি এবং এর পিক্সেল সাইজ 1.12 μm। সম্ভবত এটি IMX-458 সেন্সর। দাম অনুযায়ী ভালো একটি ক্যামেরা বলেই মনে হচ্ছে। এর সাথে রয়েছে একটি ডেপথ সেন্সর। সামনে থাকছে 8MP সেলফি ক্যামেরা।

মেমোরি ও স্টোরেজ

HM5 এখানে এসে সবচেয়ে ভালো খেলা দেখিয়েছে। এই দামের মধ্যে 3GB র‌্যাম বেশ ভালো। তবে তার চেয়ে ভালো বিষয় হলো এর ইনবিল্ট স্টোরেজ 64GB। সাধারণত 32GB রম আমরা এই দামে দেখে থাকি, তবে ওয়ালটন এখানে দ্বিগুণ দিয়েছে। অনেকেরই হয়ত একারণে এসডি কার্ড কেনার খরচ বেঁচে যাবে। আর 64GB-ও যথেষ্ট না হলে 256GB পর্যন্ত এক্সপেন্ড করার জন্য ডেডিকেটেড স্লট থাকছে। এখানেও দ্বিগুণ, এরকম দামের ফোনগুলোতে সাধারণত 128GB পর্যন্ত এক্সপেন্ডের সুবিধা দেখি।

চিপসেট

HM5 রিলিজের আগে Walton Mobile ফেসবুক পেজে Higher Clock Speed এর কথা প্রচার করেছিলো। অনেকে তো সেখান থেকে গেস করে ফেলেছিলো এখানে Helio G70 বা G80 থাকবে। আমি অবশ্যি অতদূর আশা করিনি, আমার মনে হচ্ছিলো P সিরিজের বেশি ক্লকস্পিডওয়ালা কোন একটা থাকবে।

তবে শেষ পর্যন্ত যা দেখলাম, তার জন্য আসলেই অপ্রস্তুত ছিলাম। এখানে আছে Helio A20। আমি জানি না, কেন তাদের এটার ক্লকস্পিড বেশি মনে হলো, যখন এখানে আছে 1.8 GHz এর একটি কোয়াড কোর প্রসেসর। আর এটা কীভাবেই বেটার FPS দিবে, সেটিও আমার জানা নেই। হয়ত তারা MT6739 এর সাথে কম্পেয়ার করে বলেছে, আই ডন্ট নো।

এর প্রসেসরের কোরগুলো হলো 4 টি ARM Cortex-A53 @1.8 GHz, সাথে GPU হিসেবে আছে IMG PowerVR GE8300, যার ক্লকস্পিড 550MHz। কিছুদিন আগের এন্ট্রি লেভেলের জাতীয় চিপসেট Unisoc SC9863A থেকেও এটি পিছিয়ে থাকছে। Helio A22 এবং Helio A25 থেকেও এটি অনেকটা পিছিয়ে।

এই বাজেটের সাধারণ ব্যবহারকারীদের জন্য এই চিপসেটে কাজ চলে যাবে আশা করছি, অন্তত অতীতের মত 1.3GHz Quad Core প্রসেসর তো ধরিয়ে দিচ্ছে না। তবে এই সময়ে এসে চিপসেট আরেকটু ইম্প্রুভড এক্সপেক্টেড ছিলো। বিশেষ করে, এর সাথে Higher Clockspeed, Better FPS টাইপের ট্যাগ না দিলে মনে হয় খানিকটা শান্তি লাগতো…

তবে একটা বিষয়ের প্রশংসা আমি অবশ্যই করব, তারা তাদের ওয়েবসাইটে খুব বোল্ডলি Helio A20 উল্লেখ করেছে। আগের মত 1.8 GHz Quad Core লিখে রেখে দেয়নি। চিপসেট যেটাই হোক, সেটা স্পষ্টভাবে প্রকাশ করা উচিৎ। আশা করব, ভবিষ্যতেও ওয়ালটন এটা বজায় রাখবে।

ব্যাটারী

এখানে দেওয়া হয়েছে 4900 mAh ব্যাটারী, বেশ বড় একটি ব্যাটারী অবশ্যই। যদিও 10W চার্জিংয়ের সাথে ৩ ঘন্টার আশেপাশে লাগতে পারে এটি শূন্য থেকে পূর্ণ চার্জ করতে। এখানে থাকছে Micro USB Type B পোর্ট। আমার মনে হয় না এই দামে Type C বিশেষ প্রয়োজন আছে। আর এই দামে এর থেকে ফাস্ট চার্জিংও আশা করা যায় না। তবে একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো বড় ব্যাটারীর সাথে ফোনটির থিকনেসও অনেকটা বেশি, 9.4 mm। যারা স্লিম ধরণের ফোন ব্যবহার করতে পছন্দ করেন, তারা বিষয়টি লক্ষ্য রাখবেন।

সেন্সর

প্রক্সিমিটি, লাইট, একসেলেরোমিটার সেন্সর থাকছে। সাথে আরেকটি সেন্সর দেওয়া আছে, ওরিয়েন্টেশন। আমার আসলে জানা নেই, এটার কাজ কী। সার্চ করে যা দেখলাম, এটা একটা ভার্চুয়াল সেন্সর, যেটি একসেলেরোমিটার, ম্যাগনেটোমিটার এবং ক্ষেত্রবিশেষে জাইরোস্কোপ সেন্সরগুলোর ডাটা একত্র করে ফোনটি ঠিক কোন ওরিয়েন্টেশনে আছে নির্ধারণ করে। তবে এই ফোনে যেহেতু ম্যাগনেটোমিটার বা জাইরোস্কোপ কোনটির উল্লেখ নেই, তাই বিষয়টি আমার কাছে অস্পষ্ট। কারো জানা থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানাতে পারেন।

অন্যান্য

প্রথমবারের মত ওয়ালটন এবার তাদের কোন ফোনে Android 10 ব্যবহার করলো। Android 10 হওয়াতে ডার্ক মোড সহ আকর্ষণীয় কিছু ফিচার থাকছে এখানে। নোটিফিকেশন লাইটের উল্লেখ নেই তাদের ওয়েবপেজে, অর্থাৎ, সম্ভবত থাকছে না। রেয়ার মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর দেওয়া হয়েছে এখানে। অবশ্যই এটি একটি 4G ডিভাইস এবং OTG সমর্থিত।

অভিমত

২০২০ সালে ওয়ালটনের এর আগের কোন স্মার্টফোন আমার কাছে ইমপ্রেসিভ মনে হয়নি, বরং বেশ হতাশাজনক। তবে Walton Primo HM5 সব মিলিয়ে আমার ভালো লেগেছে। ভালো না লাগার মধ্যে ডিজাইনে আরেকটু নতুনত্ব আশা ছিলো। আর চিপসেটের কথাটি অবশ্যই বলতে হয়, আরেকটু ইমপ্রুভড কিছু এক্সপেক্টেড ছিলো। ইমপ্রুভড বলতে P60 বা G70 না, Helio A25 দিলেই চলতো। আর সাথে থিকনেস 9.4 mm একটু বেশি, যদিও ব্যাটারী বেশি পেতে এটা মেনে নিতে হচ্ছে।

যারা বড় ডিসপ্লে পছন্দ করেন তাদের জন্য Symphony Z28 বা Itel Vision 1 Plus বা Realme C11 এর মত কিছু অপশন বাজারে আছে কাছাকাছি দামের মধ্যে। তবে মাঝারি ডিসপ্লের ভালো কোন ফোন বলতে এখন Primo HM5-ই সাজেস্ট করার মত মনে হচ্ছে। এরকম দামের মধ্যে 3GB র‌্যামের কিছু স্মার্টফোন থাকলেও 64GB স্টোরেজ সম্ভবত শুধুমাত্র এটিতেই থাকছে। ক্যামেরাতে সনি সেন্সর থাকায় ক্যামেরা পারফর্মেন্সও ভালো আশা করব। সব মিলিয়ে ৮৬০০ টাকার মধ্যে এটাকে ভালোর তালিকাতে রাখছি।

তথ্য ও ছবি: অফিসিয়াল ওয়েবপেজ

কীওয়ার্ড: Walton HM5, ওয়ালটন প্রিমো এইচএম৫, ওয়ালটন এইচএম৫

5 1 vote
Article Rating
Default image
তাহমিদ হাসান
এইতো, প্রতি ষাট সেকেন্ডে জীবন থেকে একটি করে মিনিট মুছে যাচ্ছে, আর এভাবেই এগিয়ে চলেছি মৃত্যুর পথে, নিজ ঠিকানায়। জীবন বড় অদ্ভুত, তাই না?
Subscribe
Notify of
guest
2 Comments
Oldest
Newest Most Voted
Inline Feedbacks
View all comments
Orrnob Mahmud
10 days ago

বরাবরের মতই অসাধারণ উপস্থাপনা। বাংলা ব্লগগুলোর মধ্যে হয়তো এই একটি ব্লগই আমি তৃপ্তি নিয়ে পড়ি।

Last edited 10 days ago by Orrnob Mahmud
2
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x