Symphony i66: আরেকটি লো বাজেট 4G স্মার্টফোন

৫৩০০ টাকায় নতুন একটি 4G স্মার্টফোন নিয়ে এসেছে সিম্ফনি, যার মডেল হলো Symphony i66। HD+ রেজ্যুলেশনের 5.45″ ডিসপ্লে, 1.5GHz ক্লকস্পিডের কোয়াড কোর প্রসেস, ১ জিবি র‍্যাম, ৮ জিবি রম, পেছনে ও সামনে যথাক্রমে 8MP ও 5MP ক্যামের দেওয়া হয়েছে এই ফোনে। কিছুদিন আগে Symphony G10 মাত্র ৪৩০০ টাকায় 4G অফার করেছে, চলুন দেখি এই নতুন স্মার্টফোনটি ১০০০ টাকা বেশি দামে কতটা ভালো।

ডিজাইনের কথা যদি বলি, খারাপ না, আবার বিশেষ কিছুও না। ক্যামেরা হাউজিং দেখে দুটি বা তিনটি ক্যামেরা মনে করে ভুল করবেন না, ওখানে প্রথমটি ক্যামেরা, পরেরটি ফ্লাশ, আর আরেকটি শুধুই বুত্তের ভেতর ক্যামেরা আইকন। সবুজ, নীল ও সোনালি রংয়ে আনা হয়েছে ফোনটি। ডিজাইন ল্যাঙ্গুয়েজে i30-কে অনুসরণ করেছে ফোনটি, কালার অপশনেও পরিবর্তন নেই।

ফোনটির স্পিকার গ্রিলস থাকছে রেয়ার সাইডে, যেটা অসুবিধাজনক, কেননা অনেক সময় ফ্লাট সারফেসে রাখলে সাউন্ড আস্তে আসে। তবে, এই দামে আসলে এমনটাই এক্সপেক্টেড। আর অবশ্যই বিল্ড ম্যাটেরিয়াল প্লাস্টিক। সামনে ডিসপ্লে হিসেবে রয়েছে 5.45″ এর HD+ ডিসপ্লে। দাম অনুযায়ী একদম ঠিকঠাক। 295 PPI হওয়ায় শার্পনেস নিয়ে সমস্যা নেই।

ফোনটিতে র‍্যাম রয়েছে ১ জিবি ও রম রয়েছে ৮ জিবি। র‍্যাম দামের দিকে তাকিয়ে মেনে নেওয়া যায়, তবে রম ১৬ জিবি হওয়া উচিৎ ছিলো, ৮ জিবি এখন আসলে খুবই কম। যাহোক, মেমোরি কার্ড দিয়ে এক্সপেন্ড করা যাবে ৩২ জিবি পর্যন্ত। আগে যেমনটা বললাম, পেছনে একটিই ক্যামেরা থাকছে, যা কিনা 8MP-র। আর সামনের ক্যামেরা 5MP।

চিপসেট বরাবরের মতই সিম্ফনি উল্লেখ করেনি, শুধু এটুকু জানিয়েছে 1.5GHz Quad-Core প্রসেসর ও 500 MHz জিপিইউ থাকছে এখানে। আমি জানি না, এটা কোন চিপসেট। ইউনিসক বা মিডিয়াটেকের এমন কোন চিপসেট আমি অনুসন্ধান করে পাইনি। MT6739 সবচেয়ে কাছাকাছি, তবে সেখানে জিপিইউ 570 MHz।

প্রক্সিমিটি, লাইট ও গ্রাভিটি সেন্সর দেওয়া হয়েছে এখানে। ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর থাকছে না এই ফোনটিতে। ব্যাটারী কিছুটা হতাশাজনক। অন্তত 3000 mAh কাম্য ছিলো, কিন্তু থাকছে 2500 mAh।

সব মিলিয়ে আমার মনে হয়েছে এই দামে এই ফোনটি যথেষ্ট ভালো কনফিগারেশন অফার করছে না। ৬০০ টাকা বাড়ালে অর্থাৎ ৫৯০০ টাকায় i95 যেখানে 4G এর সাথে 2/16 র‍্যাম-রম, 13+8 ক্যামেরা, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, 3000 mAh ব্যাটারী দিচ্ছে, সেখানে এই ফোনটি হতাশাজনক। আবার G10 থেকে ১০০০ টাকা বেশি দাম হলেও HD+ বড় ডিসপ্লে, রেয়ার ক্যামেরা 8MP, ব্যাটারি একটু বেশি ও সামান্য ইম্প্রুভড চিপসেট বাদে তেমন উন্নতি নেই।

আবার আমরা যদি i18 স্মার্টফোনটি দেখি, ৫৪০০ টাকায় সেখানে ১৬ জিবি রম, 2900mAh ব্যাটারী, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, গ্রাডিয়েন্ট ডিজাইন দেওয়া হয়েছে। আবার i30 ৫৫০০ টাকায় 5.99″ বড় ডিসপ্লে, 3700 mAh বড় ব্যাটারী, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, 16GB রম দিচ্ছে। যদিও এই দুটি স্মার্টফোনে 4G নেই, আর প্রসেসর 1.3 GHz Cortex-A7, যেটা মোটেও ভালো প্রসেসর নয়।

i66-এর বেশ কিছু ভালো দিক অবশ্যই আছে। এর চিপসেট যদি MT6739 হয়, তবে এই দামে তুলনামূলক ভালোর মধ্যে পড়বে। এখানে Android 10 ব্যবহার হয়েছে, যা এরকম লো বাজেটে এর আগে চোখে পড়েনি। আর এই দামে 4G অবশ্যই প্রশংসনীয়। ওজনে একটি বেশ হালকা। এর সাথে যদি ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, ১৬ জিবি র‍্যাম, 3000 mAh ব্যাটারী, 6″ ডিসপ্লে এই ৪টির মধ্যে যেকোন ২টি থাকতো (লো বাজেটে সব একসাথে আশা করিনা) কিংবা দাম যদি ৪৯০০ টাকা হত, তাহলে একটা ভালো ডিল বলা যেত।

তো, যাই হোক, আমার মতে, যদি i66 পছন্দ হয়, নিতে পারেন, কোন অসুবিধে নেই। আপনি অবশ্যই আপনার চাহিদা ও পছন্দ বুঝেই স্মার্টফোন কিনবেন। আর এখানে লক্ষ্যণীয় অন্য যে ফোনগুলো উল্লেখ করেছি তার কোনটিতেই Android 10 পাওয়া যাবে না। তাই, বেটার সফটওয়্যার এক্সপেরিয়েন্সের জন্য i66 পছন্দ করতে পারেন।

দ্রষ্টব্য: দামের শেষে ৯৯ বা ৯০ পূর্ণ করে দেওয়া হয়েছে।

0 0 vote
Article Rating
Default image
তাহমিদ হাসান
এইতো, প্রতি ষাট সেকেন্ডে জীবন থেকে একটি করে মিনিট মুছে যাচ্ছে, আর এভাবেই এগিয়ে চলেছি মৃত্যুর পথে, নিজ ঠিকানায়। জীবন বড় অদ্ভুত, তাই না?
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x