সময় ভ্রমণ (১২শ পর্ব): টিপলার সিলিন্ডার

সময় ভ্রমণের বিভিন্ন বিজ্ঞানভিত্তিক হাইপোথিসিসের অন্যতম হলো টিপলার সিলিন্ডার বা টিপলার সময় যন্ত্র। এটা এমন একটা সিলিন্ডার, যার ঘূর্ণনের মাধ্যমে সময় ভ্রমণ করা সম্ভব। তবে সমস্যাটা হলো,… পড়ে বলছি। ১৯২৪ সালে কর্নেল ল্যাঙ্কযস (Kornel Lanczos) ও ১৯৩৬ সালে উইলিয়াম জ্যাকব ভ্যান স্টকহাম (Willem Jacob van Stockum) কতৃক আপেক্ষিকতার সাধারণ তত্ত্বের সমাধান করে এই ধারণা দেন।

তবে এখানে যে একটা ক্লোজড টাইমলাইক কার্ভস (CTC) সৃষ্টি হতে পারে তা তখনো জানা ছিলো না। কয়েক দশক পরে ১৯৭৪ সালে বিজ্ঞানী ফ্রাঙ্ক টিপলার (Frank Tipler) আরো বিশ্লেষণ করে এখান থেকে ক্লোজড টাইমলাইক কার্ভস সৃষ্টির সম্ভাবনা দেখান। আচ্ছা, আমরা কি এই টার্মটার সাথে পরিচিত?

ক্লোজড টাইমলাইক কার্ভস (Closed Timelike Curves, সংক্ষেপে CTC)-কে বাংলা করলে হয় বদ্ধ সময়রূপী বক্রতা। একটু কঠিন লাগছে নামটা, তাই না? সহজভাবে বলি, CTC স্পেসটাইমের মধ্যে একটা বক্রতা বা কার্ভ, যেটি কোন একটি পথ অতিক্রম করে যেখানে শুরু হয়েছিলো, ঠিক সে স্থানাঙ্কে ফিরে আসে। এখানে স্থানাঙ্ক বলতে চতুর্মাত্রিক স্থানাঙ্ক। আরেকটু ব্যাখ্যা করলে, CTC ভিন্ন স্থান ও সময় অতিক্রম করে আবার শুরুর স্থান ও সময়ে ফিরে আসবে।

যদি স্পেসটাইমে একটি অসীম দৈর্ঘ্যের সিলিন্ডার থাকে এবং এটি লম্ব অক্ষ বরাবর ঘুরতে থাকে, তাহলে ফ্রেম-ড্র্যাগিং প্রভাব তৈরি হবে। এটা হলো ভর-শক্তির অস্থিতিশীল বিন্যাসের প্রভাব, যা বক্রতা সৃষ্টি করে। এর ফলে সিলিন্ডারের নিকটের বস্তুগুলোর লাইট কোণ (স্পেসটাইমের কোন বিন্দুতে কোন মুহুর্তে আলোর বিচ্ছুরণের পথ, যা স্থানিক ও সময় অক্ষের সবদিকে থাকে) হেলে যাবে, তাই, লাইট কোণের একটি অংশ সময় অক্ষের ঋণাত্মক দিকে যাত্রা করবে। অর্থাৎ কিনা, সঠিক পথে পর্যাপ্ত ত্বরণ নিয়ে কোন স্পেসক্রাফট টিপলার সিলিন্ডার দিয়ে অতীতে যাত্রা করতে পারবে।

তবে, আমরা জানি, অতীতে সময় ভ্রমণ সম্ভব না। কুচ তো গরবর হ্যায়। প্রথম সমস্যা হলো, দৈর্ঘ্য, আমরা অসীম দৈর্ঘ্যের সিলিন্ডারের কথা বলছি। যেটা আমরা কোনভাবেই বানাতে পারবে না। বিজ্ঞানী টিপলার অসীম দৈর্ঘ্য ধরে নিয়েই সমাধান করেছিলেন, কারণ এটা সুবিধাজনক। প্রশ্ন হলো, আমরা যদি খুব খুব দীর্ঘ, কিন্তু সসীম দৈর্ঘ্যের সিলিন্ডার দিয়ে এটা করতে পারব? টিপলার প্রস্তাব করেছিলেন, হয়ত ঘূর্ণন যদি খুবই দ্রুত হয়, তাহলে সম্ভব হতে পারে।

কিন্তু বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং এই প্রস্তাবনা নাকচ করে দেন। তিনি দেখান, সাধারণ শক্তি দিয়ে কোন সসীম দৈর্ঘ্যের এরিয়া নিয়ে সময় ভ্রমণের যন্ত্র বানানো সম্ভব নয়। আমাদের ঋণাত্মক শক্তি অথবা এক্সোটিক ম্যাটার লাগবে। এক্সোটিক ম্যাটারের কথা তো আগেও বলেছি, এটা এমন বস্তু যার ভর ঋণাত্মক। হকিং প্রমাণ করে দেন, সবদিকে ধনাত্মক শক্তি ঘনত্ব নিয়ে কোন সসীম এলাকায় কোন সময় যন্ত্র তৈরি সম্ভব না।

সোর্স

 

Series Navigation<< সময় ভ্রমণ (১১শ পর্ব): ওয়ার্মহোল (আইনস্টাইন রোজেন ব্রিজ)
0 0 vote
Article Rating
Default image
তাহমিদ হাসান
এইতো, প্রতি ষাট সেকেন্ডে জীবন থেকে একটি করে মিনিট মুছে যাচ্ছে, আর এভাবেই এগিয়ে চলেছি মৃত্যুর পথে, নিজ ঠিকানায়। জীবন বড় অদ্ভুত, তাই না?
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x